[Poem][newsticker]
2022


 

উত্তর বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া নিম্নচাপটি আরও শক্তি সঞ্চয় করেছে। এটির কেন্দ্রের বাতাসের গতিবেগ ওঠে যাচ্ছে ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত। ফলে উপকূলে ঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা রয়েছে। আবহাওয়াবিদ ড. মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক জানিয়েছেন- উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উত্তরপূর্ব বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি পশ্চিম-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে শুক্রবার (১৯ আগস্ট) সন্ধ্যা ৬টায় বাংলাদেশ-পশ্চিমবঙ্গ উপকূলের অদূরে উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছিল। এটি আরও উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে রাতে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ উপকূল অতিক্রম করতে পারে। গভীর নিম্নচাপ কেন্দ্রের ৪৮ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের সর্ব্বোচ্চ একটানা গতিবেগ ঘণ্টায় ৫০ কিলোমিটার, যা দমকা/ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

গভীর নিম্নচাপটির প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় গভীর সঞ্চারণশীল মেঘমালার সৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে এবং উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্য বিরাজ করছে। গভীর নিম্নচাপটির প্রভাবে সমুদ্রবন্দরসমূহ, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ঘণ্টায় ৪০-৫০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ী দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। তাই চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরসমূহকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

গভীর নিম্নচাপ ও বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্যের প্রভাবে উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, নোয়াখালী, ফেনী, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে দুই থেকে চার ফুট অধিক উচ্চতার বায়ুতাড়িত জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে। তাই উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারসমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

এদিকে ঢাকা, ফরিদপুর, যশোর, কুষ্টিয়া, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম এবং কক্সবাজার অঞ্চলসমূহের ওপর দিয়ে দক্ষিণ/দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০-৮০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি/বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরসমূহকে দুই নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এছাড়া দেশের অন্যত্র একই দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি/বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরসমূহকে এক নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

বর্তমানে মৌসুমি বায়ুর অক্ষ উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ, গভীর নিম্নচাপের কেন্দ্রস্থল ও বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে প্রবল অবস্থায় রয়েছে।

এ অবস্থায় আগামী শনিবার (২০ আগস্ট) সন্ধ্যা পর্যন্ত রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেইসঙ্গে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে। সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা ১-৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস পাবে।

২০১৯ সাল থেকে মালয়েশিয়ায় কর্মরত বৈধ বিদেশী কর্মীদের কল্যাণ দেখভালের দায়িত্ব পায় দেশটির সোশ্যাল সিকিউরিটি অর্গানাইজেশন (সকসো)। এর আগে এই দায়িত্ব ছিল মালয়েশিয়ান লেবার ডিপার্টমেন্টের। সকসো মালয়েশিয়ান নাগরিকদের কল্যাণ দেখে থাকে। নিজ দেশের কর্মীর মত বিদেশী কর্মীদের কল্যাণ নিশ্চিত করার ফলে মালয়েশিয়ান ও বিদেশী কর্মীদের মধ্যে বৈষম্য দূর হয়। 

সকসো কর্মীর দুর্ঘটনা হলে তার চিকিৎসা, পুনর্বাসন, আজীবন মাসিক ভাতা, সেবা প্রদানকারীর ভাতা, হুইল চেয়ার, কৃত্রিম পা, হাত লাগিয়ে দেয়, কর্মী মারা গেলে পরিবারকে মাসিক ভাতা দেয়, অবিবাহিত কর্মী দুর্ঘটনায় মারা গেলে তার পিতা মাতাকে আজীবন এবং অপ্রাপ্ত বয়স্ক ভাই বোনকে মাসিক ভাতা দেয়। এই ভাতা কর্মী বা কর্মীর পরিবার নিজ দেশে অবস্থান করলেও পাবে। 

বাংলাদেশে অবস্থান করেও কিভাবে ভাতা পাবে সে বিষয়ে একটি কৌশলগত চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য সকসো কয়েক বছর আগেই বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীন ওয়েজ আর্ণার্স ওয়েল ফেয়ার বোর্ডের নিকট একটি চিঠি পাঠিয়েছে। সে থেকে বিষয়টি ঝুলে আছে। ফলে বাংলাদেশে বসে আজীবন সুবিধা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। 


এদিকে, মালয়েশিয়া সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী নিয়োগকর্তারা সকসোতে বিদেশী কর্মীদের নাম নিবন্ধন করেছে। ফলে করোনা কালে ৩ হাজারের অধিক কর্মীর নানান ধরনের সুবিধা প্রাপ্তির তথ্য জানা গেছে সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে। বাংলাদেশ থেকে চুক্তি স্বাক্ষর না করায় দুর্ঘটনায় পঙ্গু হয়ে দেশে ফিরে গেলে দেশে বসে আজীবন ভাতা প্রাপ্তির এবং দুর্ঘটনায় মৃত্যু হলে লাশ হয়ে দেশে ফিরে গেলে পরিবারের পক্ষে ক্ষতিপূরণ প্রাপ্তির ক্ষেত্রে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। উল্লেখ্য, ইন্দোনেশিয়া, পাকিস্তান, ভারত, নেপালসহ বেশ কয়েকটি দেশ ইতোমধ্যে চুক্তিটি স্বাক্ষর করেছে। 

দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে দূতাবাস অনেক আগেই চুক্তিটি মতামতসহ বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের এবং ওয়েজ আর্নার্স ওয়েল ফেয়ার বোর্ডের পাঠিয়ে দিয়েছে। বাস্তব অবস্থার প্রেক্ষিতে জরুরী হওয়ায় দূতাবাস প্রতিনিয়ত মালয়েশিয়ার নিকট থেকে তাগাদা পাচ্ছে এবং একইভাবে দূতাবাস ওয়েজ বোর্ড এবং মন্ত্রণালয়কে তাগাদা দিয়ে যাচ্ছে বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে ১৩ আগষ্ট শনিবার জানতে ফোনে যোগাযোগ করা হলে ওয়েজ বোর্ডের কাউকে পাওয়া যায়নি। 

এদিকে ২০১৯ সালের ২৩ অক্টোবর প্রবাসীকল্যাণ বোর্ডের তৎকালীন পরিচালক অতিরিক্ত সচিব মো: শফিকুল ইসলামে নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি সকসোর সাথে সভা করেন। সকসো প্রধান নিজে বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় ও ওয়েজ আর্নারস ওয়েল ফেয়ার বোর্ডের সাথে সাক্ষাৎ ও সভা করে এ বিষয়টির জন্য অনুরোধ করেন। মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার গোলাম সরোয়ার ২০১৯ সালের ১৮ নভেম্বর নিজেও সকসো”র প্রধান নির্বাহীর সাথে বৈঠক করেন সে বৈঠকেও সকসো”র প্রধান নির্বাহী পরিচালক, কৌশলগত চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য অনুরোধ করেন।

মালয়েশিয়া বাংলাদেশের কর্মীদের ক্ষতিপূরণ প্রদান ও কল্যাণ নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশ প্রান্তে নিশ্চয়তা চায়। চুক্তি করা হলে ওয়েজ বোর্ডের কৌশলগত সক্ষমতা বৃদ্ধি ও প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বোর্ড সহযোগিতা পাবে। এরফলে বাংলাদেশে বসে মালয়েশিয়ান সুবিধা প্রাপ্তি নিশ্চিত হবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

সেন্টার ফর এনআরবির চেয়ারপার্সন এম এস সেকিল চৌধূরী বলেন, ‘ মন্ত্রণালয় মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর জন্য যে রকম দ্রুত গতিতে চুক্তি করেছে ঠিক এই কল্যানের কাজটিকেও গুরুত্ব দিয়ে চুক্তি করা নৈতিক দায়িত্ব। অহেতুক কালক্ষেপণ করা সমীচীন হবে না। 


এতে কর্মী ও কর্মীর পরিবার বঞ্চিত হবে। প্রবাসী কর্মীর ও পরিবারের দেশে বসে আজীবন ভাতা প্রাপ্তির ঘটনা এটাই প্রথম এবং ইতিহাস। সরকারের এ সাফল্যকে গুরুত্ব দিয়ে দেখা উচিৎ বলে মনে করেন তিনি।’ 

এদিকে যারা ইতোমধ্যে মারা গেছেন এবং পরিবার ক্ষতিপূরণ পাবেন দূতাবাস থেকে তাদের তথ্য চেয়ে ওয়েজ আর্নার্স ওয়েল ফেয়ার বোর্ডের নিকট শতাধিক পত্র প্রেরণ করা হলেও দীর্ঘদিন যাবত তাদের সম্পর্কে তথ্য প্রেরণ না করায় মালয়েশিয়া থেকে ক্ষতিপূরণ প্রাপ্তিতে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ইতোমধ্যে নির্দিষ্ট সময়ে তথ্য না দেবার কারনে অনেক কর্মীর পরিবার এর ক্ষতিপূরণ প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হয়েছে।

ভাঁজ পড়েছে মুখে ও কপালে
চাহনিটা ঠিক আগের মতই,
আমিতো বুঝি সে কি বলে 
আড়াল করুক মুখটা যতই। 

বুঝে শুনে আগ বাড়িয়ে 
হাতে গুজে দিলাম আমার ঠিকানা, 
পাগলি তবু জিজ্ঞেস করে 
আগের মত ভালোবাসি কিনা?
-অরণ্য জুয়েল
 

পাঁচ বছরের জন্য মোট ১৫ হাজার বাংলাদেশি কর্মীকে ভিসা দেবে গ্রিস। এ সংক্রান্ত একটি সমঝোতা চুক্তির অনুমোদন দিয়েছে দেশটির পার্লামেন্ট।
চলতি বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ও গ্রিসের মধ্যে এ সংক্রান্ত একটি চুক্তি হয়। তবে তা বাস্তবায়নের জন্য পার্লামেন্টের অনুমোদনের প্রয়োজন ছিল। অবশেষে বুধবার দেশটির পার্লামেন্টে প্রস্তাবটি সর্বসম্মতিতে পাস হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির অভিবাসন ও শরণার্থী বিষয়ক মন্ত্রী নোতিস মিতারাচি। তিনি এক টুইট বার্তায় এ খবর নিশ্চিত করেছেন। । 

চুক্তি অনুযায়ী গ্রিস সরকার প্রতি বছর কৃষিখাতে চার হাজার মৌসুমি কাজের ভিসা দেবে। আগামী পাঁচ বছরে সর্বমোট ১৫ হাজার বাংলাদেশিকে এই ভিসা দেওয়া হবে। তারা বছরে নয় মাস গ্রিসে বসবাস ও কাজের সুযোগ পাবেন। কৃষিখাতে ভিসা পাওয়া প্রত্যেক ব্যক্তিকে নয় মাস পর বাংলাদেশে ফেরত যেতে হবে, যা নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশ সরকার দায়বদ্ধ থাকবে। একজন ব্যক্তি এভাবে বছরে নয় মাস করে সর্বোচ্চ পাঁচ বছর গ্রিসে বৈধ অভিবাসী হিসেবে কাজ করতে পারবেন।

 

Facebook to allow up to five profiles tied to one account



ফেক আইডি চালানোর অনুমতি দিলো ফেসবুক!! এখন এক অ্যাকাউন্টে পাঁচ প্রোফাইল চালানো যাবে।

ফেসবুক নতুন নীতিমালা ঘোষণা করেছে, নতুন ফিচার চালু করেছে। এখন থেকে একটি অ্যাকাউন্ট থেকে পাঁচটি প্রোফাইল চালানোর সুযোগ দেবে ফেইসবুক। নতুন ফিচারটির মাধ্যমে প্রোফাইলে ব্যবহারকারীর আসল নাম ব্যবহারের বাধ্যবাধকতা থেকে সরে আসছে বিশ্বের বৃহত্তম সামাজিক যোগাযোগের এই প্ল্যাটফর্ম।

ফেইসবুকের মূল কোম্পানি মেটা ইনকর্পোরেটেড গত বৃহস্পতিবারের এক বিবৃতিতে এই নতুন ফিচার আনার ঘোষণা দিয়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

জন্মলগ্ন থেকেই ব্যবহারকারীদের আসল নাম ব্যবহারের বাধ্যবাধকতা দিয়ে রেখেছে ফেইসবুক, যদিও বাস্তবে তা পুরোপুরি কার্যকর হয়নি কখনোই। 

এখন একাধিক প্রোফাইল চালানোর সুযোগ দিলে তা মানুষের আগ্রহ ও সম্পর্কের ভিত্তিতে ‘নিজের অভিজ্ঞতা সাজিয়ে নিতে সাহায্য করবে’ বলে আশা করছে মেটা।

রয়টার্স লিখেছে, ফেইসবুকে পরিবারের সদস্য ও বন্ধুদের জন্য আলাদা আলাদা প্রোফাইলে আলাদা কনটেন্ট পোস্ট করার কথাই বলেছে মেটা।

তবে ফেইসবুকে কেবল একটি অ্যাকাউন্ট রাখার বাধ্যবাধকতা বজায় রাখছে মেটা। এক্ষেত্রে ব্যবহারকারীর মূল প্রোফাইলে তার আসল নাম থাকবে।

মূল প্রোফাইলের পাশাপাশি আরও প্রোফাইল বানানো থাকলে, ওই এক অ্যাকাউন্টে লগ-ইন করেই সবগুলো প্রোফাইল চালানোর সুযোগ পাবেন ব্যবহারকারী। নতুন ফিচারে মূল প্রোফাইল বাদে বাকিগুলোতে নিজের পরিচয় আংশিক গোপন রাখার সুযোগ মিলবে।

রয়টার্স বলছে, টিকটক ও টুইটারের মতো প্রতিদ্বন্দ্বীদের সঙ্গে তাল মেলাতেই নতুন ফিচারটি চালু করছে মেটা। মেটার নিজস্ব ফটো ও ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ ইনস্টাগ্রামেও একই ধরনের সেবা চালু আছে।

তবে অন্য কোনো ব্যক্তিকে নকল না করা কিংবা অন্য কারও পরিচয় ব্যবহার না করার বিষয়ে নীতিমালা অপরিবর্তিত থাকছে বলে জানিয়েছে মেটা; সবগুলো প্রোফাইলের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য হবে বিদ্যমান নীতিমালা।

নতুন ফিচারটি বেশ কয়েকটি দেশের বাজারে পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে বলে রয়টার্সকে নিশ্চিত করেছেন মেটার একজন মুখপাত্র। তবে ওই দেশগুলোর নাম জানাননি তিনি।

মুল সংবাদ 

ফোন রেখে জীবন উপভোগ করতে বললেন মোবাইলের উদ্ভাবক মার্টিন কুপার


মোবাইল ফোনের অতিরিক্ত ব্যবহার কমিয়ে জীবন উপভোগের পরামর্শ দিয়েছেন তারবিহীন যন্ত্রটির উদ্ভাবক মার্টিন কুপার। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসিকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে তিনি এই পরামর্শ দেন।

মার্টিন কুপারের বর্তমান বয়স ৯৩। তিনি ১৯৭৩ সালে বিশ্বের প্রথম ওয়্যারলেস সেলুলার ডিভাইস—মটোরোলা ডায়নাটিএসি ৮০০০এক্স—তৈরি করেন।

তবে তার প্রায় ৫০ বছর পর এই প্রকৌশলীর মনে হচ্ছে ফোনের পেছনে মানুষের আরও কম সময় দেওয়া উচিত।

বিবিসি ব্রেকফাস্ট-এ আলাপকালে কুপার স্বীকার করেন যে, তিনি নিজের সময়ের ‘পাঁচ শতাংশের’ও কম সময় ব্যয় করেন মোবাইলে।

সাক্ষাৎকার গ্রহণকারী জেইন ম্যাককাবিন কুপারকে প্রশ্ন করেন, ‘আমার মতো যারা দিনে পাঁচ ঘণ্টা পর্যন্ত ফোন ব্যবহার করে, তাদের কী বলবেন?’

এ সময় বিস্ময় প্রকাশ করে কুপার বলেন, সত্যিই? সত্যিই আপনি দিনে পাঁচ ঘণ্টা সময় দেন মোবাইলের পেছনে?’। তারপর একগাল হেসে বলেন, জীবনটাকে একটু উপভোগ করুন।
১৯৫০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি থেকে স্নাতক সম্পন্ন করে ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন কুপার। ১৯৫৪ সালে তিনি মটোরোলায় যোগ দেন।

 ১৯৭৩ সালে কুপার আবিষ্কার করেন বিশ্বের প্রথম মোবাইল ফোন। তারপর তিনি ওই ফোন দিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী জোয়েল এঙ্গেলকে কল করেন। এঙ্গেল ছিলেন এটিঅ্যান্ডটি-র প্রধান ইঞ্জিনিয়ার।

ওই ঘটনার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে কুপার বলেন, ফোন করে বললাম, জোয়েল, তোমাকে আমি একটা সেলফোন থেকে কল করেছি, সত্যিকারের সেলফোন—একটা ব্যক্তিগত, হাতেধরার পোর্টেবল সেলফোন। অপরপ্রান্তে ছিল শুধুই নীরবতা।

প্রথম মোবাইল ফোনের ব্যাটারিতে একবার চার্জ দিলে ২৫ মিনিট চলত। আর ফুল চার্জ হতে সময় লাগত ১০ ঘণ্টা। ১০ ইঞ্চি লম্বা ওই ফোনের ওজন ছিল আড়াই পাউন্ড।


মালয়েশিয়ায় ৫ মাসে লক্ষাধিক পাসপোর্ট বিতরণ করেছে বাংলাদেশ হাইকমিশন


মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত বাংলাদেশিদের চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ৩১ মে পর্যন্ত ৫ মাসে ১ লাখ ১১ হাজার ৮৩টি পাসপোর্ট বিতরণ করেছে বাংলাদেশ হাইকমিশন। বাংলাদেশি কর্মীদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে পাসপোর্ট সেবা নিশ্চিত করতে  হাইকমিশন ৫০টি পোস্ট অফিসের মাধ্যমে পাসপোর্ট বিতরণ করেছে। পাশাপাশি অনিয়মিত কর্মীদের বৈধতা গ্রহনের সুবিধার্থে অফিস চলাকালীন সময়ের বাইরে এবং ছুটির দিনেও মালয়েশিয়ার বিভিন্ন প্রদেশে বিশেষ ব্যবস্থায় পাসপোর্ট বিতরন করা হচ্ছে।

এদিকে দৈনিক অ্যাপয়েন্টমেন্ট বাড়ানো হয়েছে এবং অনলাইনে এপয়েন্টমেন্ট বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ডাকযোগে এসব পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে হলে প্রথমে appointment.bdhckl.gov.bd/poslaju ঠিকানায় প্রবেশ করে তথ্য পূরণপূর্বক আবেদন করতে হবে। এ ছাড়া ছুটির দিনে মালয়েশিয়ার ভিবিন্ন প্রদেশে কন্স্যুলার ভিজিটের সময় সরাসরি পাসপোর্ট সংগ্রহের জন্য http://appointment.bdhckl.gov.bd/other ঠিকানায় গিয়ে অনলাইনে অ্যাপয়েন্টমেন্ট গ্রহণ করতে হবে।


তবে এ ক্ষেত্রে সেবাপ্রত্যাশীদের একই সঙ্গে দুটি সেবার অ্যাপয়েন্টমেন্ট গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকার জন্য সংশিষ্ট বিভাগ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।


মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো: গোলাম সারোয়ার জানান, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ৩১ মে পর্যন্ত ৫ মাসে ১ লাখ ১১ হাজার ৮৩টি পাসপোর্ট বিতরণ করা হয়েছে। এর মধ্যে পোষ্ট অফিসের মাধ্যমে ১ লাখ ৫ হাজার ৪৫০, হাইকমিশন থেকে সরাসরি ৫ হাজার ৬৩৩ টি পাসপোর্ট বিতরণ করা হয়েছে। এ পর্যন্ত পোষ্ট অফিসের মাধ্যমে হাইকমিশনে নতুন পাসপোর্টের (রিনিউ) এর জন্য ১ লাখ ২৪৭ টি আবেদন জমা পড়েছে।

 


You can deactivate your account temporarily and choose to come back whenever you want.

To deactivate your account:
  1. From your main profile, click account in the top right of Facebook.
  2. Select Settings and privacy, then click Settings.
  3. Click Your Facebook information in the left column. If you have Facebook access to a Page in the new Pages experience: Click Privacy, then click Your Facebook information.
  4. Click Deactivation and deletion.
  5. Choose Deactivate Account, then click Continue to Account Deactivation and follow the instructions to confirm.
When your account is deactivated:
  • No one else can see your profile.
  • Some information, such as messages that you sent to friends, may still be visible.
  • Your friends may still see your name in their friends list. This is only visible to your friends, and only from their friends list.
  • Group admins may still be able to see your posts and comments, along with your name.
  • You will not be able to use your Facebook account to access Oculus products or your Oculus information.
  • Pages that only you control will also be deactivated. If your Page is deactivated, people can't see your Page or find your Page if they search for it. If you don't want your Page to be deactivated, you can give someone else full control of your Page. You'll then be able to deactivate your account without deactivating the Page.
Bear in mind that if you choose to keep Messenger active or are logged in to Messenger when you deactivate your Facebook account, then Messenger will remain active. Learn how to deactivate Messenger.
When your Facebook account is deactivated, but you still have Messenger:
  • You can still chat with friends on Messenger.
  • Your Facebook profile picture will still be visible in your conversations on Messenger.
  • Other people can search for you to send you a message.
Reactivating your account:
If you'd like to come back to Facebook after you've deactivated your account, you can reactivate your account at any time by logging back in to Facebook or by using your Facebook account to log in somewhere else. Remember, you'll need to have access to the email address or mobile number that you use to log in to complete the reactivation.
If you're the only person that has full control of a deactivated Page, you can reactivate your Page after you reactivate your Facebook account.


What happens if I permanently delete my Facebook account?
  • You won't be able to reactivate your account
  • Your profile, photos, posts, videos and everything else you've added will be permanently deleted. You won't be able to retrieve anything you've added.
  • You'll no longer be able to use Facebook Messenger.
  • You won't be able to use Facebook Login for other apps that you may have signed up for with your Facebook account, such as Spotify or Pinterest. You may need to contact the apps and websites to recover those accounts.
  • Some information, such as messages you sent to friends, may still be visible to them after you've deleted your account. Copies of messages that you've sent are stored in your friends' inboxes.
  • If you use your Facebook account to log in to Oculus, deleting your Facebook account will also delete your Oculus information. This includes your app purchases and your achievements. You will no longer be able to return any apps and will lose any existing store credits.
  • Pages that only you control will also be deleted. If you don't want your Page to be deleted, you can give someone else full control of your Page. You'll then be able to delete your account without deleting the Page.
What if I don't want all of my content deleted, but I want to take a break from Facebook?
You can take a break from Facebook and temporarily deactivate your account. When you temporarily deactivate your account:
  • People won't be able to see or go to your Facebook profile.
  • Your photos, posts and videos won't be deleted.
  • You can still use Facebook Messenger. Your profile picture will still be visible in your conversations and people will still be able to search for you by name to send you a message. You will continue to appear to friends on Facebook in places where they can message you.
  • You will not be able to use your Facebook account to access Oculus products or your Oculus information.
  • Pages that only you control will also be deactivated. If your Page is deactivated, people can't see your Page or find your Page if they search for it. If you don't want your Page to be deactivated, you can give someone else full control of your Page. You'll then be able to deactivate your account without deactivating the Page.
  • You can choose to come back whenever you want.
How do I permanently delete my account?
Before deleting your account, you may want to log in and download a copy of your information (e.g. your photos and posts) from Facebook, and a copy of your Oculus information if you use your Facebook account to log in to Oculus. After your account has been deleted, you won't be able to retrieve anything you've added.
To permanently delete your account:
  1. From your main profile, click account in the top right of Facebook.
  2. Select Settings and privacy, then click Settings.
  3. Click Your Facebook information in the left column. If you have Facebook access to a Page in the new Pages experience: Click Privacy, then click Your Facebook information.
  4. Click Deactivation and deletion.
  5. Choose Delete Account, then click Continue to account deletion.
  6. Click Delete Account, enter your password and then click Continue.
Can I cancel my account deletion?
If it's been less than 30 days since you initiated the deletion, you can cancel your account deletion. After 30 days, your account and all of your information will be permanently deleted, and you won't be able to retrieve your information.
It may take up to 90 days from the beginning of the deletion process to delete all the things you've posted. While we're deleting this information, it's not accessible to other people using Facebook.
Copies of your information may remain after the 90 days in backup storage that we use to recover in the event of a disaster, software error or other data loss event. We may also keep your information for things such as legal issues, terms violations or harm prevention efforts. Learn more about our Privacy Policy.
To cancel your account deletion:
  1. Log in to your Facebook account within 30 days of deleting your account.
  2. Click Cancel Deletion.

 লম্বা হওয়ার ১০ উপায়। ৩০ দিনে ৩-৪ ইঞ্চি লম্বা হওয়ার উপায়



আজকাল লম্বা শারীরিক গঠনের কদর খুবই বেশি। বিয়ের বিজ্ঞাপন থেকে বিমানবালার চাকরিসহ সব ক্ষেত্রেই লম্বা মানুষের চাহিদা বেশি! অনেকেইর ধারনা লম্বা হওয়া প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ বংশগত একটি বিষয়। এ কারণে কেউ চাইলেও অন্য কোনো পদ্ধতি অবলম্বন করে লম্বা হতে পারবে না। তবে ধারণাটি সঠিক নয়। সঠিক জীবনযাপনে কিছুটা হলেও শরীরের উচ্চতা বৃদ্ধি করা যায়। কীভাবে প্রাকৃতিক উপায় অনুসরণ করে যে কেউ চাইলে লম্বা হতে পারে। ৩০ দিনে ৩-৪ ইঞ্চি লম্বা হওয়ার উপায়। চলেন তাহলে লম্বা হওয়ার উপায় গুলো দেখে আসি!


রোদে হাঁটা : 

হাড়ের বিকাশের জন্য শরীরে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়। আর রোদে হাঁটলে শরীরে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়। তবে শরীরের রঙ ভেদে রোদে থাকতে হবে। এর মধ্যে ফর্সা ত্বকের লোক সর্বোচ্চ ৩০ মিনিট রোদে থাকতে পারবেন। কিন্তু কালো ত্বকের লোকদের ভিটামিন ডি পেতে হলে প্রায় ঘন্টখানেক রোদে থাকতে হবে।

পর্যাপ্ত পুষ্টি: 

লম্বা হওয়ার উপায় প্রচুর পরিমাণে চর্বিযুক্ত প্রোটিন খান। মটরশুটি, সয়া এবং বাদামের মতো চর্বিযুক্ত প্রোটিনগুলি পেশীর বৃদ্ধি এবং হাড়ের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। সাধারণ কার্বোহাইড্রেট যেমন পিজ্জা, কেক, মিষ্টি এবং সোডা থেকে দূরে থাকার খাদ্য গ্রহন করুন। প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম খান। পাতলা সবুজ শাকসব্জী যেমন পালংশাক এবং কালের মতো এবং কেল্লাযুক্ত খাবারে পাওয়া যায় ক্যালসিয়াম স্বাস্থ্যকর হাড়ের উন্নতিতে সহায়তা করে। জিঙ্কের অভাবে দেহের বৃদ্ধি সহ নানা ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে। তাই দেহের বৃদ্ধির জন্য বা লম্বা হওয়ার জন্য জিঙ্কের অভাব পূরন করতে হবে। জিঙ্কের অভাব পূরন লম্বা হওয়ার উপায় সহজ করে।

কি কি খাবারে জিঙ্ক পাওয়া যায়? -গরু এবং ভেড়ার মাংসে উচ্চ মানের জিঙ্ক পাওয়া যায়। আটা ময়দার রুটি। দুগ্ধজাত সকল খাদ্য । শীম জাতীয় উদ্ভিদ। মসুর ডাল। চীনাবাদাম। মাশরুম। গরু এবং খাসির কলিজায়


শরীরচর্চা: 

শরীর ভালো রাখতে যেমন নিয়মিত শরীরচর্চার বিকল্প নেই, তেমনি শরীরের উচ্চতা বৃদ্ধিতেও শরীরচর্চার বিকল্প নেই। নিয়মিত শরীরচর্চা করলে শরীরের উচ্চাতা এমনিতেই বাড়বে।


পর্যাপ্ত ঘুম: 

পর্যাপ্ত ঘুমের ফলে দৈহিক উচ্চতা বৃদ্ধি পায়। উচ্চতা বাড়াতে চাইলে প্রতিরাতে আট ঘণ্টা করে ঘুমাতে হবে। এটি সবচেয়ে সহজ এবং অনেক কার্যকরী উপায়। সঠিক এবং সুন্দর ভাবে ঘুমানো আপনার দেহের স্বাভাবিক বৃদ্ধি মাত্রা আরও বাড়িয়ে তোলে।

স্বাস্থ্যকর দেহভঙ্গি: 

সোজা হয়ে সঠিকভাবে বসলে শরীরের উচ্চতা বৃদ্ধি পাবে। চলাফেরার ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। তাই কুঁজো না হয়ে মেরুদণ্ড করে বসতে হবে। ও চলাফেরা করতে হবে।


অস্বাস্থ্যকর অভ্যাস ত্যাগ করা: 

জীবন থেকে অস্বাস্থ্যকর অভ্যাসগুলো বাদ দিলে শরীরের উচ্চতা বৃদ্ধি পাবে। নেশা জাতীয় দ্রব্য থেকে দূরে থাকুন, নেশা জাতীয় দ্রব্য যেমন শরীরের জন্য ক্ষতিকর তেমনি শরীরের হরমোনের পরিমান কমিয়ে আনে। শরীরের স্বাভাবিক বৃদ্ধিতে বাধা দেয়। আজই ধূমপান , মদ , এসব নেশা ছেড়ে দিন।


আত্মবিশ্বাসী হওয়া: 

সব সময় হাসি-খুশি থাকলে মন সতেজ থাকে। নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস রাখুন। কেননা আত্মবিশ্বাস শরীর ও মনের উপর ইতিবাচক ভূমিকা রাখে। ফলে কিছু না কিছু উচ্চতা বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া স্ট্রেস বা মানসিক চাপ লম্বা বৃদ্ধি হওয়ার ক্ষেত্রে একটি বাঁধা। যাতে আপনার  হরমোনের মাত্রা কমে যায় এবং করটিসল উৎপাদিত হয়। ভিটামিন ঈ সম্পূরকসমূহ যা করটিসল কমাতে জোর সহায়তা করে।

লম্বা হতে নিজেকে মানসিক চাপ মুক্ত করুন: 

লম্বা হওয়ার উপায় শরীর বৃদ্ধিতে হরমোনের গুরুপ্ত অনেক। ছেলে মেয়ে সবারই শরীরের উচ্চতা নির্ধারন করে তাদের হরমোনর উপর। আপনি যদি মানসিক চাপে থাকেন তাহলে আপনার হরমোন তৈরিতে বাধা প্রাপ্ত হতে পারে। আনন্দে থাকুন, স্ট্রেস ফ্রি থাকুন, মানসিক চাপ মুক্ত থাকুন।

ব্যায়াম: 

আপনার উচ্চতা বাড়াতে প্রতিদিন ১ ঘন্টা ব্যায়াম করুন যেমন : সাতাঁর কাটুন, দড়ি লাফান, সাইকেল চালান, রিং টানুন ইত্যাদি ব্যায়াম করতে পারেন। জিমে জয়েন করলে আরও ভাল হয়। 

Niacin supplementation:  

Niacin একটি প্রাকৃতিক ভিটামিন নামক ভিটামিন ই৩। গবেষণা থেকে জানা যায়, ৫০০ গ্রাম নিয়াসিন নেওয়া মানুষের থেকে সাধারণ মানুষের বৃদ্ধি কম ঘটে।



লম্বা হওয়ার উপায় ?

লম্বা হওয়ার সহজ উপায় ?

লম্বা হওয়ার উপায় ?

লম্বা হওয়ার সহজ উপায় কি?

লম্বা হওয়ার দোয়া?

কিভাবে লম্বা হওয়া যায়?

লম্বা হওয়ার ব্যায়াম চিত্রসহ?

লম্বা হওয়ার ঔষধ?

লম্বা হওয়ার ব্যায়াম?

লম্বা হওয়ার দোয়া?

কিভাবে লম্বা হওয়া যায়?

লম্বা হওয়ার ব্যায়াম চিত্রসহ?

লম্বা হওয়ার ঔষধ?

লম্বা হওয়ার ব্যায়াম?


সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে একবছরে বাংলাদেশীদের জমা ৮,৩৪৫ কোটি টাকা !


 সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে গত একবছরে বাংলাদেশীদের জমা ৮,৩৪৫ কোটি টাকা ! এ যাবৎকালে কোন বছরেই এ পরিমান  টাকা জমা পড়েনি। সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি) কর্তৃক বৃহস্পতিবার প্রকাশিত ‘ব্যাংকস ইন সুইজারল্যান্ড-২০২১’ শীর্ষক বার্ষিক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।


দেশে যখন টাকা পাচার ঠেকানোর তোড়জোড়, তখন নজিরবিহীন গতিতে সুইস ব্যাংকে টাকা জমিয়েছেন বাংলাদেশিরা। গত এক বছরে সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকে বাংলাদেশিদের জমা অর্থের পরিমাণ প্রায় ৫৫ শতাংশ বেড়েছে।

২০২১ সাল শেষে দেশটির ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশিদের জমা অর্থের পরিমাণ আগের বছরের ৫৬ কোটি ৩০ লাখ সুইস ফ্রাঁ থেকে বেড়ে ৮৭ কোটি ১১ লাখ সুইস ফ্রাঁ হয়েছে। বর্তমান বিনিময় হার (১ সুইস ফ্রাঁ =৯৫ টাকা ৮০ পয়সা) হিসাবে বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ আট হাজার ৩৪৫ কোটি টাকা। টাকার হিসাবে ২০২০ সালে সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের ৫ হাজার ২০৩ কোটি টাকা জমা ছিল।


২০১৮ থেকে ২০২০ সাল-পরপর তিন বছর সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থের পরিমাণ কমার পর ২০২১ সালে বড় ধরনের উল্লম্ফন হয়েছে।

২০১৯ সালে বাংলাদেশিদের মোট সঞ্চয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছিল ৬০ কোটি ৩০ লাখ ফ্র্যাংক। স্থানীয় মুদ্রায় ৫ হাজার ৪২৭ কোটি টাকা (প্রতি সুইস ফ্র্যাংক ৯০ টাকা হিসাবে), যা কমপক্ষে ১২টি বেসরকারি ব্যাংকের (দেশের) পরিশোধিত মূলধনের সমান।


২০১৮ সালে এ সঞ্চয় ছিল ৫ হাজার ৫৫৯ কোটি টাকা। অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় ১৩২ কোটি টাকা কমেছে। এ ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারতের পরেই বাংলাদেশের অবস্থান। তবে আলোচ্য বছরে দেশটির আমানত কমেছে।

তবে পাচার সম্পর্কে কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া যায়নি। এমনকি আমানত হিসাবে কার কত অর্থ আছে, তা-ও জানা যায়নি। এসব তথ্য কখনই প্রকাশ করে না এসএনবি।



 
মালয়েশিয়ায় অবৈধ অভিবাসীদের রিক্যালিব্রেশন প্রোগ্রামের (আরটিকে) মাধ্যমে বৈধ করার নামে অর্থ আত্মসাৎ করার অভিযোগে দুই জন বাংলাদেশিসহ ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে দেশটির অভিবাসন বিভাগ। গ্রেফতারকৃতদের সবাইকে অভিবাসন আইন ১৯৫৯/৬৩ ধারায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১৪ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। গত শুক্রবার (১০ জুন) দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান দেশটির অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক দাতুক সেরি খাইরুল জাইমি দাউদ। তবে তদন্তের স্বার্থে গ্রেফতার বাংলাদেশিদের নাম প্রকাশ করা হয়নি। 


জনাব খাইরুল জাইমি দাউদ বলেন, গত বুধবার (৮ জুন) কুয়ালালামপুরের জালান লুমুত ও সেলাঙ্গরের আমপাংয়ের পান্ডান কাহায়ায় অভিযান চালিয়ে প্রথমে চারজন ও পরে আরও দুই বাংলাদেশিকে আটক করা হয়। তারা দুজনেই মালয়েশিয়ান নারীকে বিয়ে করে এ প্রতারণা করে আসছেন। তাদের স্ত্রীদেরও আটক করা হয়েছে।

অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক বলেন, মালয়েশিয়ার স্থায়ী বাসিন্দা (মাইপিআর) মর্যাদা ধারী এক বাংলাদেশি সিন্ডিকেট চক্রের মাস্টার মাইন্ড হিসেবে কাজ করতেন। মালয়েশিয়ার এক নারীকে বিয়ে করা তাকে ২০১৫ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি মাইপিআর স্ট্যাটাস (অনুমতি) দেওয়া হয়েছিল। ভিসা জালিয়াতির মাধ্যমে তিনি দুই মিলিয়নের বেশি টাকা আয় করেছেন বলে ধারণা করছে অভিবাসন বিভাগ। 


তিনি বলেন, এই সিন্ডিকেট চক্রটি ২০২১ সালে অবৈধভাবে একটি নির্মাণ সংস্থা ও একটি অবৈধ কর্মসংস্থান সংস্থা স্থাপন করে চালু হওয়া আরটিকে প্রোগ্রামে অবৈধভাবে অর্থ উপার্জন শুরু করে। তারা প্রত্যেক অভিবাসীদরে কাছ থেকে ওয়ার্কিং ভিজিট পাস (পিএলকেএস) দেওয়ার জন্য তিন হাজার পাঁচশ থেকে চার হাজার দুইশ টাকা নিতো।

 জাইমি দাউদ বলেন, অভিযানে বাংলাদেশি ৪৫৭টি পাসপোর্টসহ ইন্দোনেশিয়ান আটটি, ভারতের আটটি, পাকিস্তানের আটটি, মিয়ানমারের ছয়টি ও নেপালের একটিসহ বিভিন্ন দেশের মোট ৪৮৮টি পাসপোর্ট জব্দ করা হয়েছে। এছাড়াও বিপুল পরিমাণ মালয়েশিয়ান রিঙ্গিত, দুটি কম্পিউটার ও ১২টি স্ট্যাম্পসহ বিভিন্ন মালামাল জব্দ করা হয়েছে। এগুলো রিক্যালিব্রেশন প্রোগ্রামের কাজে ব্যবহার করা হতো। অভিবাসন বিভাগের ডাটাবেসে পরীক্ষায় এই ৪৮৮ জন পাসপোর্টধারীর কেউ যদি পিএলকেএস পেয়ে থাকেন তাহলে তা বাতিল করা হবে বলেও জানান তিনি।

 ইরাকে জেগে ওঠছে ৩৪০০ বছরের পুরাতন শহর

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বেড়েছে বৈশ্বিক উষ্মায়ন। দেখা দিয়েছে তীব্র খরা । এই তীব্র খরায় ইরাকের কিমিউন এলাকায় টাইগ্রিস নদীর একাংশ শুকিয়ে গিয়েছে। ওই নদীতে পানির স্তর নেমে যাওয়ায় চলতি বছরের শুরু থেকে শহরটির বিভিন্ন স্থাপনা ধীরে ধীরে ভেসে উঠছে। সেটা খনন করতেই বেরিয়ে এল এক সুপ্রাচীন এক সভ্যতা। 


এটি ছিল মিত্তানি সাম্রাজ্যের অংশ। খ্রিষ্টপূর্ব ১৫৫০ থেকে ১৩৫০ সাল পর্যন্ত এই শহরে মানুষের বসবাস ছিল। ওই সময়ের শহর এটি। অর্থাৎ শহরটি প্রায় ৩ হাজার ৪০০ বছরের পুরাতন। এতো দিন আস্ত এই শহরটি পানির নিচেই ডুবে ছিল। 


মনে করা হচ্ছে ভূমিকম্পের কবলে পড়ে গোটা শহরটাই চাপা পড়ে যায় মাটির নিচে চাপা পড়ে যায়। ২০২২ সালে এসে ফের সামনে এল  খ্রীষ্টপূর্বাব্দের এই শহর। 


শহরটির অস্তিত্ব ছিল ব্রোঞ্জ যুগে। বস্তুত, জার্মান এবং কুর্দিশ প্রত্নতাত্ত্বিকদের দু’টি দল যৌথভাবে খননকাজ চালিয়ে প্রাচীন এই শহরটিকে ফের জনসমক্ষে এনেছেন। বিগত কয়েকবছর ধরে শুকিয়ে গিয়েছে ট্রাইগ্রিস এবং  ইউফ্রেটিস নদীর জল। এমতবস্থায় যাতে ফসলের ক্ষতি না হয় তার জন্য মসুল বাধের লাগোয়া জলাধারে শুরু হয় খনন কার্য। এই খনন কার্য চালানোর সময়েই সন্ধান মেলে এই সুপ্রাচীন নগরীর।


ইরাকের এই প্রাচীন শহরের খননকাজে যুক্ত রয়েছেন জার্মানির তুরিনজেন ইউনিভার্সিার্টির প্রত্নতত্ত্ববিদেরা। গত মঙ্গলবার (৮ জুন, ২০২২) এক বিবৃতিতে বিশ্ববিদ্যালয়টি জানায়, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর একটি ইয়াক। দেশটির মসুল অঞ্চলে কয়েক মাস ধরে উষ্ণ আবহাওায়া ও বাড়তি তামমাত্রা বজায় রয়েছে। মসুল বাধের পানিও দ্রুত কমছে। এর জের ধরে ট্রাইগ্রিস নদীর পানি শুকিয়ে যাওয়ায় মসুল-সংলগ্ন স্বায়ত্তশাসিত কুর্দিস্তান অঞ্চলের কিমুনেতে অবস্থিত ব্রোঞ্জ যুগের প্রাচীন এই শহরের সন্ধান পাওয়া গেছে।  


জার্মান ও কুর্দিশ প্রত্নতত্ত্ববিদেরা জানান,  এটি প্রাচীন মিত্তানি সাম্রাজ্যের সময়কার একটি শহর। শহরটিতে একটি প্রাসাদ রয়েছে। আরও রয়েছে কয়েকটি বড় আকারের ভবন। ধারণ করা হচ্ছে, খ্রিষ্টপূর্ব ১৫৫০ থেকে ১৩৫০ সাল পর্যন্ত এই শহরে মানুষের বসবাস ছিল। ভয়াবহ ভূমিকম্পের কারণে ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল প্রাচীন শহরটি। পরে ধীরে ধীরে আন্ত শহরটি টাইগ্রিসে তলিয়ে যায়। এখন আবারো প্রাকৃতিক দুর্যোগের (খরা) কারণে তলিয়ে যাওয়া শহরটি জেগে উঠতে শুরু করেছে।



 



 ছাড়িয়া যায়ও নারে বন্ধু 

এমনো পিরিতের পর

পিরিতি কান্দিয়া মরে 

খোঁজে তোমার অন্তর।।


পিরিতের বিষম কাটা

দিবানিশি কান্দনের ভয়

এমন রীতি জানিয়া বন্ধু

পিরিতে নামিতে হয়

তুমি চলিয়া গেলেরে প্রিয়

জগৎ যে হয় আন্ধার...

পিরিতি কান্দিয়া মরে 

খোঁজে তোমার অন্তর।।


সয়তে যদি না পারিবা

পিরিতের ভর

পিরিতি সাজাইয়া কেন

বানাইলা এঘর...

পিরিতি কান্দিয়া মরে 

খোঁজে তোমার অন্তর।।


অরণ্য জুয়েল  #অরণ্য_জুয়েল

MKRdezign

Contact Form

Name

Email *

Message *

Theme images by Jason Morrow. Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget